Reading Time: 4 minutes

শীতের রুক্ষতা কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই আপনার প্রিয় চুলগুলোর উপর নতুন ঝক্কি দিতে এসে পড়েছে গরমকাল। নিজের  ত্বকের পাশাপাশি শরীরের এই অংশটিরও ভীষণ জরুরিভাবে যত্ন নেয়া প্রয়োজন। এই সময়টি চুলের যত্ন-আত্তি কম হলে, আপনার প্রিয় ও শখের চুলের অবস্থা হয়ে যাবে ভীষণ খারাপ। ফলে চুলের যত্নে আপনাকে হতে হবে বিশেষ সতর্ক।

আসুন গরমে চুলের সুস্থতার জন্য কিভাবে যত্ন নেবেন।

আনুন অভ্যাসে পরিবর্তন

অনেকে মনে করেন, প্রতিদিন চুল শ্যাম্পু করলে চুল পড়ে যায়। প্রতিদিন শ্যাম্পু করলে চুলের ক্ষতি- এ চিন্তা ভুল। শ্যাম্পুর কাজ হচ্ছে চুল পরিষ্কার করা। এ ছাড়া খুশকির জন্য চুল পড়ছে, এটাও ঠিক নয়। উল্টো গরমে চুল ঘেমে থাকে বেশিরভাগ সময়ে। ফলে এ সময় গোড়ায় চুলকানো ও চুল টানলে গোড়া নরম হয়ে চুল পড়তে থাকে। ফলে এ স্বভাব এড়িয়ে চলতে হবে। এর পাশাপাশি ঘামের সমস্যা কমাতে উত্তেজনা, দুশ্চিন্তা, গরম আবহাওয়া যথাসম্ভব পরিহার করাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে। গরমের সময় বেশি ঝাল খাবার, গরম চা, গরম কফিও পরিহার করতে হবে।

চুলে শ্যাম্পু করুন প্রতিদিন

যারা রোজ কোন না কোন কাজে ঘরের থেকে বাইরে যান, তাদের চুলে প্রতিদিন শ্যাম্পু করা উচিৎ। শ্যাম্পু করলে চুল পড়ে যায়- এ ধারণা ঠিক নয়। আপনার ত্বক অনুযায়ী শ্যাম্পু চুল পরিষ্কার করে। মাথার ত্বকের ধরন এবং চুলের কোনো সমস্যার ওপর নির্ভর করে এটি বাছাই করা উচিত।

প্রাকৃতিক ক্লিনজিং উপাদান দিয়েও চুল পরিষ্কার করা যেতে পারে। যখন শ্যাম্পু আবিষ্কার হয়নি, তখন আগেরদিনের মানুষেরা রিঠা আর শিকাকাই দিয়ে মাথার চুল পরিষ্কার করতো। এ দুটি ফল দিয়ে চুল পরিষ্কার করে এতে চুল পরিষ্কার তো হয়ই, সঙ্গে খুশকি, উকুন, চুল পড়াও কমে যায়। গজায় নতুন চুল।

ভেষজ ব্যবহার

গরমে আমাদের সকলেরই মাথা গরম থাকে। ঘামে ভিজে ওঠে। এ সময় মাথা ঠাণ্ডা রাখতে সাহায্য করবে অ্যালোভেরা। অ্যালোভেরার রসের সাথে আরো আপনি মেশাতে পারেন মেথি গুঁড়া ও ত্রিফলা (আমলকী, হরিতকি ও বহেরা ভেজানো পানি)। এগুলো একসঙ্গে মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে চুলে লাগিয়ে ১৫ মিনিট অপেক্ষা করে পরিষ্কার, ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে। এ উপকরণে আপনার চুল পড়া কমবে এবং চুলের স্বাস্থ্য ভালো থাকবে।

গরমে আরেকটি চুলের পরিচর্যাকারী জিনিস হলো নারকেলের দুধ। এর ব্যবহার মাথায় রক্ত চলাচল বাড়ায়। এতে রয়েছে ভিটামিন ই ও ফ্যাট। চুলের ক্ষয় হয়ে যাওয়া চুলের পরিচর্যা করে ও ভেতর থেকে চুলকে মজবুত রাখে।

চুল শুকানো খুব জরুরী

আমরা অনেকেই আছি ভেজা চুল গরমের জন্য বেঁধে রাখি। এটি মোটেও ঠিক নয়। এতে করে চুলের গোড়া পঁচে চুল নরম করে দেয়। সেই সাথে চুলে গন্ধ হয়। চুল শুকনোর জন্য হেয়ার ড্রেয়ার না ব্যবহার করাই ভালো। বরং, এর বদলে ফ্যানের বাতাসে চুল শুকিয়ে নেয়া সবচেয়ে বুদ্ধিমানের কাজ হবে।

চুলে তেল দিন

চুলে তেল দেয়া অনেক ঝামেলাদায়ক মনে করেন অনেকে। তবে চুলের যত্ন-আত্তিতে তেল খুব দরকারী। চুলে অন্তন্ত সপ্তাহে দু’দিন তেল দিয়ে ম্যাসাজ করুন। এখন বাজারে ভালো ব্র্যান্ডের অর্গানিক তেল পাওয়া যায়। নারিকেল তেল, অ্যালমন্ড তেল বিশেষ উপকারী।

চুল হালকা করে বাঁধুন

গরমে চুল খোলা না রেখে হালকা করে বেঁধে রাখা ভালো। এতে করে চুলে অতিরিক্ত ঘাম হবে না। অন্যদিকে মানানসই চুলের বাঁধন এনে দিতে পারে আপনাকে অন্যরকম লুক।

বাহিরে গেলে ছাতা বা স্কার্ফ ব্যবহার করুন

রোদে চুল হয়ে ওঠে রুক্ষ। চুলকে রুক্ষ ও লালচে ভাব দূর করতে বাহিরে বের হবার সময় অব্যশই ছাতা বা স্কার্ফ ব্যবহার করুন।

হিজাবে চুলের যত্ন

বর্তমানে হিজাব একটি ফ্যাশনেরও একটি অংশ হয়ে উঠেছে। যারা হিজাব ব্যবহার করেন তারা চুলের যত্নটি আরো অধিক গুরুত্ব দিয়ে নিবেন ।

  • হিজাব পড়ার সময় অব্যশই চুল যেন শুকনো থােকে তা দেখতে হবে। ভেজা চুলে হিজাব করা যাবেনা। তাহলে চুল গন্ধ হয়ে উঠতে পারে।
  • হিজাব করবার সময় হিজাবটি যের পাতলা ও নরম কাপড়ের হয় তা দেখতে হবে। যেন মাথায় ও চুলে বাতাস চলাচল করতে পারে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।
  • নিয়মিত শ্যাম্পু করে পরিষ্কার রাখতে হবে।

গরমে চুলের যত্নে মনোযোগী হতে হবে। চুলের সুস্থতায় তাই উপরের নিয়মগুলো অনুসরণ করে চলুন।